চেহারায় প্রাণ ফিরিয়ে আনতে লিপস্টিকের জুড়ি নেই। যেকোনো নারীরই লিপস্টিক ভীষণ পছন্দের। লিপস্টিকের জন্য মেকআপও পূর্ণতা পায়। কোন লিপস্টিকে ভালো দেখাবে, কিভাবে দিলে ভালো দেখাবে এসব প্রশ্নের উত্তর পেতেই নিচের টিপস দেখে নিতে পারেন।

লিপস্টিক দেয়ার নিয়ম

  • লিপস্টিক-লাগানোর আগে ঠোঁটে প্রথমে পাউডার লাগিয়ে নিবেন। তাতে বেশিক্ষণ লিপস্টিক থাকবে।
  • লিপলাইনার বেছে নিবেন। যে রঙের-লিপস্টিক লাগাবেন তার চেয়ে একশেড গাঢ় রঙের লিপলাইনার বাছাই করবেন।
  • লিপলাইনার দিয়ে ঠোঁট আউটলাইন করবেন। ঠোঁটের সেন্টার পয়েন্ট থেকে আউটার কর্নারের দিকে লিপলাইনার লাগাবেন।
  • উপরের ঠোঁটের একেবারে শেষ প্রান্ত পর্যন্ত লিপলাইনার টেনে লাগাবেন না।
  • এমনভাবে নিচের ঠোঁটে লিপলাইনার লাগাবেন যেন উপরের ঠোঁটের লিপলাইনকে স্পর্শ করতে পারে।
  • লিপ ব্রাশ দিয়ে লিপস্টিক লাগাতে পারেন। সেন্টার থেকে আউটওয়ার্ড স্ট্রোকে লিপ ব্রাশ লাগান। লিপ ব্রাশ দিয়ে লিপস্টিক লাগালে ঠোঁটের শেপ ভালো বোঝা যাবে। অতিরিক্ত লিপস্টিক টিস্যুপেপার চেপে মুছে নিবেন।
  • আপনি লিপস্টিক না লাগিয়ে শুধু লিপগ্লস লাগাতে চাইলেও লিপ ব্রাশ দিয়েই লাগাবেন।
  • যাদের ত্বকে বলিরেখার সমস্যা রয়েছে তারা ডার্ক শেডের-লিপস্টিক । যেমন ডার্ক মেরুনের মতো লিপস্টিক ব্যবহার করবেন না এতে আপনাকে আরো রুক্ষ দেখতে লাগবে।
  • লিপস্টিক লাগানোর পর আয়নায় দেখে মুখ খুলে হাসুন। তবে সহজেই বুঝা যাবে ঠোঁটের পুরোটা কভার আপ হয়েছে কিনা।

লিপস্টিকের সঠিক শেড বেছে নিন

  • আপনার গায়ের রঙ চাপা হলে পিচের বা পিংক মতো হালকা শেডের লিপস্টিক না লাগালেই ভালো। এমনকি ফ্লুরোসেন্ট কালারও ব্যবহার করবেন না।
  • আপনার গায়ের রঙে যদি হলদে ভাব থাকে তবে অরেঞ্জ শেডের লিপস্টিক ব্যবহার করবেন না। ব্রাউন, কপার, ব্রোঞ্জ, কোরাল, ব্রিক রেডের মতো রঙ বেছে নিন। এগুলো সব ধরনের ত্বকের উপযোগী।
  • আপনি রাতের অনুষ্ঠানের জন্য ডার্ক রেড শেডের লিপস্টিক ব্যবহার করতে পারেন। তবে খুব ডার্ক কালার, যেমন ডার্ক মেরুন ব্যবহার করবেন না। আপনার পছন্দ মতো ডার্ক রেড, বারগেন্ডি, ডিপ কোরাল, প্লাম, ওয়াইন রেড ইত্যাদি শেডের যেকোনো লিপস্টিক ব্যবহার করতে পারেন।

জানতে চাই  ঠোঁটের কালো দাগ দূর করার উপায়